গুলিস্তান পাতাল মার্কেট | গুলিস্তান মার্কেট কবে বন্ধ থাকে 2023

5/5 - (1 vote)

আপনারা যারা গুলিস্তান মার্কেট সম্পর্কে জানতে চান বিশেস করে গুলিস্তান পাতাল মার্কেট সম্পর্কে জানতে চান এবং কম দামে কেনাকাটার গাইডলাইন চান তাদের জন্য চমকপ্রদ হতে চলেছে আজকের আলোচনা।

স্থানীয়ভাবে উত্পাদিত পণ্য থেকে শুরু করে বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানি করা আইটেমের বিস্তৃত ভাণ্ডারে পরিনত হয়েছে এই গুলিস্তান মার্কেট। এটি অসংখ্য বিক্রেতার প্রধান কর্মস্থল যারা স্থানীয় অর্থনীতি এবং বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রতিটি ক্ষেত্রে জড়িত রয়েছেন।

গুলিস্তান মার্কেট | Gulistan market
Gulistan market

গুলিস্তান মার্কেট

১৯৯৭ সাল থেকে জাত্রা শুরু করা বাংলাদেশের ঢাকায় অবস্থিত গুলিস্তান মার্কেট (Gulistan Market) জীবন ও সংস্কৃতিতে পূর্ণ একটি প্রাণবন্ত স্থান। রাজধানী ঢাকায় অবস্থিত এই মার্কেট বাংলাদেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি মার্কেট। এটি একটি প্রাণবন্ত মার্কেট যেটি ১৯৯৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

ঐতিহ্যবাহী হস্তনির্মিত পণ্য থেকে শুরু করে আধুনিক ইলেকট্রনিক্স সবকিছুই বিক্রি হয় এই মার্কেটে। প্রতিদিন দর্শনার্থীরা হস্তশিল্পের গয়না এবং মৃৎপাত্র থেকে শুরু করে পোশাক এবং আসবাবপত্র সহ বিস্তৃত সব পণ্য খুঁজে পেতে ভিড় জমান এখানে।

গুলিস্তান মার্কেট মূলত চারটি (০৪)। আপনারা হয়ত অনেকেই তা জানেন না। গুলিস্তান এর মার্কেট সমূহ হলঃ

  1. গুলিস্তান স্টেডিয়াম মার্কেট
  2. গুলিস্তান খদ্দর বাজার মার্কেট
  3. গুলিস্তান পাতাল মার্কেট এবং
  4. গুলিস্তান ফুলবাড়িয়া মার্কেট।
গুলিস্তান পাতাল মার্কেট
Gulistan Patal Market

গুলিস্তান পাতাল মার্কেট

গুলিস্তান পাতাল মার্কেট টি স্টেডিয়াম মার্কেট থেকে সামান্য দক্ষিনে অবস্থিত। গুলিস্তান জিরো পয়েন্ট থেকে পূর্ব দিকে বায়তুল মোকাররম মসজিদ হয়ে সামান্য অগ্রসর হলেই এই মার্কেট এর দেখা মিলবে। গুলিস্তান পাতাল মার্কেটে সবার জন্য কিছু না কিছু আছে, খাবার থেকে শুরু করে পোশাক এবং আরও অনেক কিছু।

আপনি কি শিক্ষা, ট্রেনের খবর, ট্রাভেল গাইড, মার্কেট গাইড সহ সকল জেলার আপডেট পেতে চান ? আপনাকে উঁকি মারতেই হবে আমাদের ফেসবুক পেজ এ!!

এই কোলাহলপূর্ণ শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত পণ্য ক্রয়-বিক্রয় কর্মকাণ্ডের জন্য একটি জমজমাট কেন্দ্র এই মার্কেট। ফলমূল ও শাকসবজির চমৎকার প্রদর্শনি থেকে শুরু করে স্থানীয় দোকানে পাওয়া সুগন্ধি মশলা দ্বারা মার্কেটটি প্রাণবন্ত। গুলিস্তান মার্কেট এমন একটি জায়গা যা সবসময় সব ধরনের সব পেশার মানুষে ভরপুর থাকে। এখানে আকর্ষণীয় বেশ কিছু পণ্য রয়েছে যা দর্শনার্থীদের পণ্য ক্রয় করার জন্য একটি দুর্দান্ত জায়গা করে তুলেছে।

গুলিস্তান মার্কেট কবে বন্ধ থাকে

গুলিস্তান মার্কেট শুক্রবার পূর্ণ দিন এবং শনিবার অর্ধ বেলা বন্ধ থাকে। তবে এই দুইদিন ছাড়া সাপ্তাহিক আর কোন বন্ধ নেই। বাকি দিন গুলোতে জাকজমকের সাথে পণ্য ক্রয় বিক্রয় চলে। প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষের ভিড় এই মার্কেটটিকে প্রানবন্ত করে তুলেছে।

গুলিস্তান মার্কেট বন্ধের দিনঃ

  • গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার এর মার্কেটিং নিয়ম অনুসারে গুলিস্তান মার্কেট সাপ্তাহিক শুক্রবার পুরো দিন এবং শনিবার অর্ধেক বেলা বন্ধ রাখা হয়। বন্ধের দিন ছাড়া সপ্তাহের প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮টা পর্যন্ত খোলা থাকে।

এখানে ঐতিহ্যবাহী বাংলাদেশী মিষ্টি এবং স্ন্যাকস থেকে শুরু করে রঙিন কাপড় এবং গয়না সবই পাওয়া যায় । দোকানের প্রাচুর্যের পাশাপাশি, রাস্তায় প্রচুর বিক্রেতা রয়েছে যারা তাদের জিনিসপত্র জনসাধারণের কাছে বিক্রি করে স্বল্প মূল্যে। তাই কম দামে কেনাকাটার জন্য আজি চলে আসুন এই মার্কেটে।

জেনে নিন ঢাকায় কম দামে কেনাকাটার সেরা তিনটি মার্কেট সম্পর্কে বিস্তারিত।

কিভাবে যাবেন

ঢাকা গুলিস্তান এর এই সব মার্কেট এ সহজে গাড়ি, বাস, স্কুটার, মোটরসাইকেল, প্রাইভেট কার কিংবা সিএনজি করে যাওয়া যায়। যারা বাসে যেতে চান তাদের জন্য, বাজারের মধ্য দিয়ে যাওয়া রুটগুলির আশেপাশের অনেক এরিয়া থেকে আসতে পারবেন।

বাসে আসা তুলনামুলক সহজ ও কম খরচ হবে। আপনাদের সুবিধার জন্য বেশ কিছু বাসের তালিকা নিম্নে দেওয়া হল।

যাত্রা শুরুর স্থানআসার উপায়
মিরপুর
বিহঙ্গ, দিশারী, ট্রান্সসিল্ভা, শিকড়, হিমাচল, বাহন, নিউ ভিশন ইত্যাদি
গাবতলি/ সাভারগাবতলি ৮নং,বঙ্গবন্ধু ও এয়ারপোর্ট ট্রান্সপোর্ট সহ মিরপুর এর সকল বাস
শাহবাগগুলিস্তান অভিমুখী সকল বাস যেমন, বিহঙ্গ, শিকড়, হিমাচল, দিশারী।
রামপুরা/বাড্ডাভিক্টর ক্লাসিক, ৬ নম্বর
মৌচাক/মালিবাগ৬ নম্বর, শান্তিনগর থেকে বলাকা পরিবহন
নারায়নগঞ্জমেঘলা পরিবহন এবং হিমাচল পরিবহন
গাজীপুর/ এয়ারপোর্টবঙ্গবন্ধু এয়ারপোর্ট এ সরাসরি, বলাকা পরিবহন ভিক্টর ক্লাসিক ইত্যাদি
ধানমন্ডিমিডল্যান্ড, দিশারী, মেঘলা,ট্রান্সসিল্ভা, বাহন
যাওয়ার উপায়

গুলিস্তান চোরাই মোবাইল মার্কেট

গুলিস্তানের এই মার্কেট বাংলাদেশের একমাত্র জনপ্রিয় মার্কেট যেখানে কম দামে পুরনো ইউজড মোবাইল কিংবা চোরাই মোবাইল ক্রয় এবং বিক্রয় করা যায়। অতি স্বল্প দামে বিক্রেতারা এসব মোবাইল বিক্রি করে বলে এই এই মার্কেট চোরাই মোবাইল ক্রয় বিক্রয়ের জন্য সকলের কাছে পরিচিতি লাভ করেছে।

এখানে বেশ কিছু লোকাল দোকান রয়েছে সেখানে তো পাবেনই সেই সাথে গুলিস্তান পাতাল মার্কেট বিশাল পরিসরে আপনার জন্য তারা মোবাইল এর পসরা নিয়ে বসে আছে। সেখানে দাম দর করে সতরকতার সাথে আপনার কাঙ্ক্ষিত মোবাইলটি ক্রয় করতে পারেন।

তবে সতর্ক থাকবেন পুরাতন মোবাইল ক্রয় এর ক্ষেত্রে কেননা এসব মোবাইল কিনে আইনি ঝামেলায় পরতে পারেন। কেনার আগে অবসশই দেখে নিবেন এই মোবাইল এর নামে কোন মামলা আছে কিনা।

Similar Posts